বাংলাদেশের বিশ্বকাপ জেতা সম্ভব-মাশরাফি

খেলাধুলা প্রধান সংবাদ

বাংলাদেশ ক্রিকেট অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার বিশ্বাস, এবারের শিরোপা জেতার সামর্থ্য বাংলাদেশের আছে।
বিশ্বকাপ ও আয়ারল্যান্ড সিরিজের উদ্দেশ্যে দেশ ছাড়ার আগে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে শেষ মুখোমুখি হলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি। আজ সোমবার মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে তিনি বলেন, ‘বিশ্বকাপ জেতার সামর্থ্য বাংলাদেশের অবশ্যই আছে। তবে কজাটা খুবই কঠিন। অবশ্য আমি বলব অসম্ভব নয়। আমাদের কিছু মাইনাস পয়েন্ট আছে। এর আগে আমরা এশিয়া কাপের ফাইনালে উঠেও শিরোপা জিততে পারিনি। চ্যাম্পিয়নস ট্রপির সেমিফাইনাল থেকে বিদায় নিয়েছিলাম। তাই এ ধরনের টুর্নামেন্টে ভালো করা একটা অভ্যাসের ব্যাপার।
এখন বাংলাদেশের সেমিফাইনালে ওঠা বড় চ্যালেঞ্জ বলে মনে করেন নড়াইল এক্সপ্রেস, ‘বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সেমিফাইনালে ওঠা হবে বড় একটি চ্যালেঞ্জ। শেষ চারে খেলতে পারলে বাংলাদেশের জন্য একটি বড় অর্জন হবে। তবে আমরা প্রতিটি ম্যাচে ধারাবাহিকভাবে সাফল্য পেতে চাই।’
আসরে চাপমুক্ত ক্রিকেট খেলতে চায় বাংলাদেশ। এ সম্পর্কে মাশরাফি বলেন, ‘সত্যি কথা বলতে কি, আমাদের ওপর কোনো চাপ নেই। বিশ্বকাপ জিততে হবে বা সেমিফাইনালে খেলতে হবে। তবে আমাদের সেমিতে খেলার আকাঙ্ক্ষা আছে। সামর্থ্যও আছে। নির্ভর হয়েই খেলতে চাই আমরা।’
এবারের বিশ্বকাপে অভিজ্ঞ এবং তারুণ্যনির্ভর আরেকটি দল নিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। তাই অনেকেই সেরা দলের কাতারে ফেলতে চায় বাংলাদেশকে। এ সম্পর্কে বাংলাদেশ অধিনায়ক বলেন, ‘সেরা দল বলে হাইপ তোলার কোনো প্রয়োজন নেই। যারা মাঠে ভালো খেলে, তারাই সেরা। এই দল নিয়েই আমরা এশিয়া কাপ জিততে পারিনি।’
অবশ্য পেস বোলারদের নিয়ে আশাবাদী মাশরাফি, ‘বিশ্বকাপে আমাদের পেস বোলাররা ভালো করলে আমাদের জয়ের সম্ভাবনা বেশি থাকবে। দলে বেশ কয়েকজন ভালো পেসার আছে, যারা দলকে সাফল্য এনে দিতে পারে। এ ছাড়া সাকিব বিশ্বমানের স্পিনরার, মিরাজের মতো বোলার আছে।’
আগামী ৩০ মে মাঠে গড়াচ্ছে বিশ্বকাপ ক্রিকেট। আসরে বাংলাদেশ প্রথম মাঠে নামবে ২ জুন। সে ম্যাচে তাদের প্রতিপক্ষ দক্ষিণ আফ্রিকা। আসরে অংশ নিতে আগামী ১ মে দেশ ছেড়ে যাওয়ার কথা বাংলাদেশের।
বিশ্বকাপের বাংলাদেশ দল : মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, লিটন দাস, সৌম্য সরকার, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান (সহ-অধিনায়ক), মাহমুদউল্লাহ, মোহাম্মদ মিঠুন, সাব্বির রহমান, মেহেদী হাসান মিরাজ, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মুস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেন ও আবু জায়েদ রাহি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *