মশাকে বন্ধ্যা করার পদ্ধতি আবিষ্কার

বিশ্ব বিস্ময়

জিকা ভাইরাস, ম্যালেরিয়া, ডেঙ্গু ইত্যাদির মতো বেশ কয়েকটি মারাত্মক রোগের জন্য দায়ী মশা। বাংলাদেশে অবশ্য ম্যালেরিয়া ও ডেঙ্গুর প্রকোপই বেশি। এবছর তো ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা অন্য যেকোনও বছরের চেয়ে বেশি ছিলো।

মশাবাহিত রোগে আক্রান্ত হওয়ার ভয়ে আতঙ্কে থাকেন সবাই। তবে এই আতঙ্ক হয়তো বেশিদিন থাকবে না। কেননা, বিজ্ঞানীরা নতুন এক ধরনের পদ্ধতি উদ্ভাবন করেছেন যার সাহায্যে মশার ডিম পাড়া বন্ধ করে দেয়া যাবে। ফলে কমবে মশার উৎপাত।

সিএনএনের বরাত দিয়ে ভার্জিনিয়াভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ব্লুফিল্ড ডেইলি টেলিগ্রাফ জানিয়েছে, ইম্পেরিয়াল কলেজ লন্ডনের গবেষকরা মশার জিন পরিবর্তনের একটি পদ্ধতি উদ্ভাবন করেছেন যার সাহায্যে মশাকে বন্ধ্যা করে দেয়া যাবে। এতে মশা ডিম পাড়বে না। ফলে নতুন করে মশা জন্মাবেও না।

জানা গেছে, একটি মশা পুরুষ নাকি নারী হবে তা নির্ধারণ করে ‘ডাবলসেক্স জিন’। আর এই জিন পরিবর্তন করলে পুরুষ মশা স্বাভাবিক থাকলেও নারী মশা হারাবে ডিম পারার ক্ষমতা। চাইলেও তারা ডিম পাড়তে পারবে না।

সম্প্রতি এ সম্পর্কিত একটি গবেষণা জার্নাল নেচার বায়োটেকনোলজিতে প্রকাশিত হয়েছে। এতে বলা হয় গবেষণাগারে বিজ্ঞানীরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেছেন। এতে মশার উৎপাদন কমাতে শতভাগ সফলতা পাওয়া গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *